বিভিন্ন প্রজন্মের কম্পিউটার//কাম্পউটার কোথায় কোথায় দেখা যায়?

 বিভিন্ন প্রজন্মের কম্পিউটার

 বিভিন্ন প্রজন্মের কম্পিউটার


ভূমিকা: প্রাচীনকাল হতে কিভাবে বিভিন্ন যন্ত্র আবিষ্কার হতে হতে কম্পিউটারের আবিষ্কার হয়েছে। তবে সেই সময়ের কম্পিউটার আর আজকের কম্পিউটারের মধ্যে অনেক তফাত আছে। তখন কম্পিউটারগুলি ছিল আকারে বিশাল এবং তাদের কাজ করার গতি ছিল খুবই মন্থর আর প্রধান কাজ ছিল গণনা করা। এখনকার কম্পিউটারগুলি সাইজে ছােটো হয়ে গেছে আর বিভিন্ন ধরনের কাজও করতে পারে আর সেগুলিও খুবই দ্রুতগতিতে। ইনিয়াক ছিল সম্পূর্ণভাবে বিদ্যুৎ চালিত প্রথম কম্পিউটার। এতে ভ্যাকুয়াম টিউব নামে একটি যন্ত্রের ব্যবহার করা হত। ভ্যাকুয়াম টিউব থেকে শুরু করে এখন পর্যন্ত নানারকম যন্ত্রের আবিষ্কারের ফলে কম্পিউটারের জগতে অনেক উন্নতি ঘটেছে। কম্পিউটারের উন্নতির এই সময়কালকে কয়েকটি ভাগে ভাগ করা যায়, যেগুলিকে কম্পিউটার প্রজন্ম বা কম্পিউটার জেনারেশন (Computer Generation) বলা হয়।

প্রথম প্রজন্ম (1942-55)

ভ্যাকুয়াম টিউবের ব্যবহার শুরু হওয়ার সাথে সাথে এই প্রজন্মের শুরু হয়। এই সময়ের কম্পিউটারগুলি আকারে অনেক বড় ছিল এবং এগুলিকে চালাতে প্রচুর পরিমাণ বিদ্যুতের প্রয়ােজন হত। কিছুক্ষণ চললেই এগুলি খুব গরম হয়ে যেত, ফলে কাজ করতে অসুবিধা হত। তাই এগুলিকে শীততাপ নিয়ন্ত্রিত ঘরে রাখা হত। ENIAC, EDVAC, UNIVAC-1 ইত্যাদি কম্পিউটার এই প্রজন্মে তৈরি করা হয়েছিল।

দ্বিতীয় প্রজন্ম (1956-64)

দ্বিতীয় প্রজন্মের কম্পিউটারে ভ্যাকুয়াম টিউবের পরিবর্তে ট্রানজিস্টরের ব্যবহার শুরু হয়, যার ফলে কম্পিউটারগুলি আগের তুলনায় ছােটো এবং উন্নত হয়ে যায়। আগের থেকে এগুলির কাজ করার গতি বেড়ে যায় এবং নির্ভরযােগ্যতাও বেড়ে যায়। IBM – 7030, Honeywe|| 400 ইত্যাদি কম্পিউটার এই সময়ে তৈরি করা হয়েছিল।

তৃতীয় প্রজন্ম (1965-74)

তৃতীয় প্রজন্মের সূচনা হয় আই সি তৈরির সাথে সাথে। আই সির পুরাে নাম হল ইনটিগ্রেটেড সার্কিট। এই সময়ে কম্পিউটারগুলির কাজ করার গতি আরাে বেড়ে যায়। কম্পিউটারগুলি সাইজেও অনেক ছােটো হয়ে যায়। IBM- 360, IBM-370 ইত্যাদি হল এইসময়ের কম্পিউটার।

চতুর্থ প্রজন্ম (1975- এখনও চলছে)

চতুর্থ প্রজন্মের সূচনা হয় মাইক্রোপ্রসেসর আবিষ্কার হওয়ার ফলে। মাইক্রোপ্রসেসরের আবিষ্কার কম্পিউটারের জগতে এক বিশাল পরিবর্তন এনে দেয়। কম্পিউটারের আকার অনেক ছােট হয়ে যায় এবং গতিও যথেষ্ট বৃদ্ধি পায়। এই সময় কম্পিউটারে এল এস আই বা লার্জ স্কেল ইন্টিগ্রেশন এবং ভি এল এস আই বা ভেরি লার্জ স্কেল ইন্টিগ্রেশন প্রযুক্তির ব্যবহার করা হয়। পূর্বের তুলনায় এর দামও অনেক কমে যায়, ফলে এর ব্যবহার বৃদ্ধি পায়। DEC 10, Apple Cornputer ইত্যাদি হল এই প্রজন্মের প্রথম দিকের কম্পিউটার। বর্তমানে আমরা অনেক উন্নতমানের কম্পিউটার দেখতে পাই। intel Core 17

পঞ্চম প্রজন্ম (বর্তমান থেকে ভবিষ্যতের কম্পিউটার): বর্তমানে যে কম্পিউটারগুলি তৈরী হচ্ছে এবং ভবিষ্যতেও হবে, সেইগুলিকে পঞ্চম প্রজন্মের কম্পিউটার হিসাবে বিবেচনা করা হয়। আশা করা যায়, এই প্রজন্মের কম্পিউটারের নিজস্ব বিচার করার ক্ষমতা বা বুদ্ধি থাকবে যেমন রােবােট। এই সময় কম্পিউটারে ইউ এল এস আই বা আলট্রা লার্জ স্কেল ইন্টিগ্রেশন প্রযুক্তির ব্যবহার করা হচ্ছে। চেষ্টা করা হচ্ছে এমন ধরনের কম্পিউটার তৈরির যার নিজস্ব বুদ্ধি এবং চিন্তাভাবনা করার ক্ষমতা থাকবে।

                   এইভাবে দেখা গেল কিভাবে ধীরে ধীরে উন্নতি হতে হতে আজ কত উন্নতমানের কম্পিউটার তৈরি করা সম্ভব হয়েছে। ফলে এর ব্যবহার আজকাল দৈনন্দিন কাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে হচ্ছে।

 File Details –


PDF Name / Book Name  বিভিন্ন প্রজন্মের কম্পিউটার
Language : Bengali
Size : 49.4 kb
Download Link : Click Hereto Download

কাম্পউটার কোথায় কোথায় দেখা যায়?

কাম্পউটার কোথায় কোথায় দেখা যায়


কম্পিউটার একটি বিস্ময়কর মেশিন। একে ছাড়া এখন জীবন ভাবাই যায় না। দৈনন্দিন জীবনের বিভিন্ন ক্ষেত্রে কম্পিউটার খুবই গুরুত্বপূর্ণ এক স্থান অধিকার করেছে এবং এর গুরুত্বটাকে আরাে বাড়িয়ে দিয়েছে ইন্টারনেট। ইন্টারনেট বলতে কি বােঝায়, জানাে কি? এটি হল এমন একটি প্রযুক্তি, যার সাহায্যে দেশে বিদেশে কোটি কোটি কম্পিউটার একসাথে যুক্ত থাকে এবং খুব সহজেই এদের মধ্যে তথ্যের আদানপ্রদান করা যায়। আমরা এখন বাড়িতে, বিদ্যালয়ে, হাসপাতালে, ব্যাঙ্কে, অফিসে, রেলওয়ে স্টেশনে, এয়ারপাের্টে, শপিং মলে ইত্যাদি বিভিন্ন স্থানে কম্পিউটার দেখতে পাই। এসাে বিভিন্ন স্থানে এর ব্যবহারের সম্বন্ধে সংক্ষিপ্তভাবে কিছু জানি।

বাড়িতে : তােমার বাবা চিঠি লিখতে পারেন, হিসাবনিকাশ রাখতে পারেন। তােমার মা শপিং লিস্ট তৈরি করেন, অনলাইন শপিংও করতে পারেন। দাদা বা দিদি ইন্টারনেটে কোনাে বিষয়ের সম্বন্ধে তথ্য খুঁজতে পারে, কম্পিউটারের মাধ্যমে চিঠি (ই-মেল) পাঠাতে পারে। তুমি কিছু টাইপ করতে পারাে, তােমার গণিত ক্লাসের হােমওয়ার্ক করতে পারাে, ড্রইং করতে পারাে। আর এন্টারটেনমেন্টের জন্য গান শুনতে পারাে, সিনেমা দেখতে পারাে এবং গেমও খেলতে পারাে।

বিদ্যালয়ে: ছাত্রছাত্রীদের পড়াবার জন্য এর ব্যবহার হয়। শিক্ষক শিক্ষিকা এতে প্রশ্নপত্র, রিপাের্ট কার্ড ইত্যাদি তৈরি করতে পারেন। লাইব্রেরীতে বইয়ের রেকর্ড রাখার জন্য এর ব্যবহার হয়। বিদ্যালয়ের অফিসে ছাত্রছাত্রীদের তথ্য সঞ্চিত রাখার জন্য, নােটিস, চিঠি ইত্যাদি টাইপ করার জন্য এবং হিসাব-নিকাশ করার জন্য এর ব্যবহার হয়।

হাসপাতালে: হাসপাতালে রােগীদের সম্বন্ধে যাবতীয় তথ্য এর সাহায্যে রাখা যায়। বিভিন্ন ধরনের শারীরিক পরীক্ষা করা এবং এগুলির রিপাের্ট প্রিন্ট করার জন্যও এর ব্যবহার হয়।

ব্যাঙ্কে: ব্যাঙ্কে গ্রাহকদের সম্বন্ধে যাবতীয় তথ্য যেমন- গ্রাহকদের নাম, ঠিকানা, কে কত টাকা জমা দিলেন, কার অ্যাকাউন্টে কত টাকা আছে, ইত্যাদি তথ্য রাখার জন্য এর ব্যবহার করা হয়। এর সাহায্যে সহজেই বড় বড় গণনা নির্ভুলভাবে করা যায়। এ টি এম মেশিন, যার সাহায্যে আমরা যখন খুশী টাকা ব্যাঙ্ক থেকে ওঠাতে পারি, সেটিও কম্পিউটারের সাহায্যেই চলে।

অফিসে: আজকাল প্রায় সব অফিসেই কম্পিউটার দেখা যায়। অফিসে বিভিন্ন চিঠি, নােটিস ইত্যাদি টাইপ করার জন্য এর ব্যবহার হয়। কম্পিউটারের মাধ্যমে সহজেই অন্য অফিসে চিঠি (ই-মেল) পাঠানাে যায়। বিভিন্ন অফিসে আজকাল কম্পিউটারের মাধ্যমেই অ্যাকাউন্টস করা হয়।

রেলওয়ে স্টেশনে এবং এয়ারপাের্টে :কম্পিউটারের সাহায্যে আজকাল রেলের বা বিমানের টিকিট সহজেই বুকিং করা যায়। কম্পিউটারের মাধ্যমে যাত্রীদের তথ্যও সঞ্চিত করে রাখা হয়। এর সাহায্যে কোনাে ট্রেন বা বিমান কখন ছাড়বে, কখন পৌঁছাবে বা তাতে কতগুলি সিট আছে, কত টাকা ভাড়া ইত্যাদি জানা যায়। শপিং মল ছােটো বড় শপিং মল বা স্টোরে প্রচুর সংখ্যক জিনিস থাকে। এই জিনিসগুলির হিসাব কম্পিউটারের মাধ্যমেই রাখা হয়। এছাড়া যখন তুমি শপিং করবে, তাহলে তার বিলটিও কম্পিউটারের মাধ্যমেই বানানাে হয়, যা খুবই সহজ এবং নির্ভুল হয় আর সময়ও বেশী লাগে না।

সিনেমা ক্ষেত্রে: তােমরা তাে অনেকেই নিশ্চয়ই স্পাইডার ম্যান, জাঙ্গল বুক, লাইফ অফ পাই, বাল গণেশা ইত্যাদি সিনেমাগুলি দেখেছ। জানাে কি, এগুলাে সবই কম্পিউটারের সাহায্যেই তৈরী করা হয়ে থাকে। এছাড়া টিভিতে যে কার্টুনগুলি দেখাে, যেমনডােরেমন, ছােটা ভীম এসবও কম্পিউটারের মাধ্যমেই তৈরী হয়। কম্পিউটারের ব্যবহার হয় এমন অনেকগুলি জায়গার সম্বন্ধে তােমরা জানলে। পরবর্তী অধ্যায়ে আমরা বিভিন্ন প্রকার কম্পিউটারের সম্বন্ধে জানব।

File Details –

PDF Name / Book Name  কাম্পউটার কোথায় কোথায় দেখা যায় 
Language : Bengali
Size : 129 kb
Download Link : Click Hereto Download

 

Leave a Comment