Class 8 Science completion model activity task

Class 8 Science completion model activity task

Table of Contents

১. ঠিক উত্তর নির্বাচন করাে :

১.১ চাপের SI একক হলাে – 

(ক) নিউটন 

(খ) নিউটন বর্গমিটার 

(গ) নিউটন/বর্গমিটার 

(ঘ) নিউটন/বর্গমিটার।

১.২ আইসােবারদের ক্ষেত্রে নীচের যে কথাটি ঠিক তা হলাে এদের – 

(ক) ভর সমান 

(খ) প্রােটনসংখ্যা সমান

(গ) নিউট্রনসংখ্যা সমান 

(ঘ) ভরসংখ্যা সমান।

১.৩ যে কোশীয় অঙ্গাণুর মধ্যে পুরােনাে জীর্ণ কোশকে ধ্বংস করার জন্য নানা ধরনের উৎসেচক থাকে তা হলাে –

(ক) মাইটোকনড্রিয়া 

(খ) রাইবােজোম 

(গ) নিউক্লিয়াস 

(ঘ) লাইসােজোম।

১.৪ যেটি তড়িৎবিশ্লেষ্য নয় সেটি হলাে – 

(ক) সােডিয়াম ক্লোরাইড 

(খ) অ্যামােনিয়াম সালফেট 

(গ) গ্লুকোজ

(ঘ) অ্যাসেটিক অ্যাসিড।

১.৫ ডিম পােনা প্রতিপালন করা হয় যেখানে সেটি হলাে – 

(ক) সঞ্চয়ী পুকুর 

(খ) হ্যাচারি 

(গ) পালন পুকুর 

(ঘ) আঁতুর পুকুর।

১.৬ মৌমাছিদের জীবনে চারটি দশার সঠিক ক্রমটি হলাে –

(ক) ডিম → পিউপা → লার্ভা → পূর্ণাঙ্গ

(খ) ডিম → লার্ভা → পূর্ণাঙ্গ → পিউপা

(গ) ডিম → লার্ভা → পিউপা → পূর্ণাঙ্গ

(ঘ) ডিম → পূর্ণাঙ্গ → লার্ভা → পিউপা।

২. শূন্যস্থান পূরণ করাে :

২.১ কোনাে কঠিন অনুঘটককে গুঁড়াে করা হলে তার পৃষ্ঠতলের ক্ষেত্রফল _____বেড়ে_______ যায়।

২.২ _____বায়ুর_______ কম্পনই বজ্রপাতের সময় শব্দ উৎপন্ন করে।

২.৩ ____ক্যাফিনের________ উপস্থিতির জন্য চা পানে শরীরে উদ্দীপনা আসে।

৩. ঠিক বাক্যের পাশে ‘‘ আর ভুল বাক্যের পাশে ‘🗙‘ চিহ্ন দাও :

৩.১ স্প্রিং তুলার সাহায্যে বস্তুর ওজন মাপা হয়।

উ:-   

৩.২ জারণ ও বিজারণ বিক্রিয়া সবসময় একসঙ্গে ঘটে।

উ:-   

৩.৩ সবুজ চায়ে ভিটামিন K পাওয়া যায়।

উ:-   

Class 8 Science completion model activity task

৪. সংক্ষিপ্ত উত্তর দাও :

৪.১ এক কিলােগ্রাম ভরের বস্তুকে পৃথিবী কত পরিমাণ বল দিয়ে আকর্ষণ করে?

উ:-  এক কিলােগ্রাম ভরের বস্তুকে পৃথিবী (1×9.8) নিউটন = 9.8 নিউটন বল দিয়ে আকর্ষণ করে।

৪.২ লঘু অ্যাসিড থেকে হাইড্রোজেন গ্যাস মুক্ত করার ক্রমহ্রাসমান প্রবণতা অনুসারে কয়েকটি ধাতুকে সাজিয়ে দেওয়া হলাে – Na, Fe, (H), Cu, Au৷ এই তথ্য থেকে সবচেয়ে তড়িৎধনাত্মক ধাতুটিকে চিহ্নিত করাে।

উ:-  সবচেয়ে তড়িৎ ধনাত্বক ধাতু হল Na ( সােডিয়াম)।

৪.৩ চোখের রেটিনায় উপস্থিত কোন কোশ মৃদু আলােয় দর্শনে সাহায্য করে? 

উ:-  চোখের রেটিনায় উপস্থিত রড কোশ মৃদু আলােয় দর্শনে সাহায্য করে।

৪.৪ আলুর যে এনজাইম হাইড্রোজেন পারক্সাইডকে জল ও অক্সিজেনে ভেঙে ফেলে তার নাম লেখাে। 

উ:-  আলুর যে এনজাইম হাইড্রোজেন পারক্সাইডকে জল ও অক্সিজেনে ভেঙে ফেলে তার নাম হল ক্যাটালেজ।

৪.৫ বায়ুর মধ্যে দিয়ে তড়িৎচলাচল ঘটা সম্ভব কীসের জন্য?

উ:-  বায়ুর মধ্যে জলীয়বাষ্প থাকলে বা বায়ুর আর্দ্রতা বেশি হলে বায়ুর মধ্যে দিয়ে তড়িৎচলাচল ঘটা সম্ভব।

৪.৬ মুরগী পালনের একটি আধুনিক পদ্ধতি হলাে ‘ডিপ-লিটার। “লিটার’ কী? 

উ:-  খর, বিচালি, শুকনাে পাতা, কাঠের গুঁড়াে, ধান, জবের তুষ, ভুট্টা, আমের খােলা প্রভৃতি দিয়ে ঘরের মেঝেতে প্রস্তুত পোল্ট্রি পাখির বিশেষ ধরনের শয্যাকে লিটার বলে।

৫. একটি বা দুটি বাক্যে উত্তর দাও :

৫.১ কুলম্বের সূত্রের গাণিতিক রূপটি লেখাে এবং K রাশিটির SI একক উল্লেখ করাে। 

উ:-  

কুলম্বের সূত্রের গাণিতিক রূপটি হল – 

K রাশিটির SI একক = নিউটন. (মিটার)2 / কুলম্ব2

৫.২ খুব শুকনাে ও ঠান্ডা পরিবেশে বসবাসকারী প্রাণীদের দেহে কী কী বিশেষ বৈশিষ্ট্য দেখা যায়? 

উ:-  খুব শুকনাে ও ঠান্ডা পরিবেশে বসবাস কারী প্রাণীদের দেহে নিম্নলিখিত বৈশিষ্ট্য দেখা যায় – 

(i) খুব সুন্দর ঠাণ্ডা পরিবেশে বসবাসকারী প্রাণীদের কৌশিক অ্যান্টিফ্রিজ প্রােটিন থাকে। এই প্রােটিন কোষীয় তরলে বরফের কেলাস তৈরিতে বাধা দেয়।

(ii) এছাড়াও তাপ সংরক্ষণ এর প্রয়ােজনে এদের ফ্যাট সঞ্চয়কারী কোষের প্রাচুর্য থাকে। 

(iii) অনেক প্রাণীর ত্বক চর্বি জমার কারণে অপেক্ষাকৃত পুরু হয়। 

(iv) প্রাণীর পিঠে কুঁজে চর্বি সঞ্চিত থাকে। 

(v) অনেক প্রাণীর চোখের পাতা স্বচ্ছ হয় ।

(vi) অনেক সময় এই সব পরিবেশের প্রাণীরা প্রয়ােজন মত নাকের ফুটো বন্ধ করতে ও খুলতে পারে ।

৫.৩ উত্মতা বৃদ্ধিতে বেশিরভাগ রাসায়নিক বিক্রিয়ার হার বৃদ্ধি পায় কেন?

উ:-  কোন রাসায়নিক বিক্রিয়ার উষ্ণতা বৃদ্ধি করলে বিক্রিয়ক সমূহের গতিশক্তি বেড়ে যায়। যার কারনে বিক্রিয়ক অণু গুলির মধ্যে সংঘর্ষের পরিমাণ বেড়ে যায় এবং বিক্রিয়ার হার বৃদ্ধি পায়।

৫.৪ ইনফ্লুয়েঞ্জা রােগে কী কী লক্ষণ দেখা যায়? 

উ:-  ইনফ্লুয়েঞ্জা রােগের লক্ষণ গুলি হলাে, – জ্বর, নাক দিয়ে জল পড়া, গলা ব্যাথা, পেশীতে ব্যাথা, মাথাব্যাথা, কাশি, অবষাদগ্রস্থতা।

৫.৫ জলে অ্যামােনিয়াম ক্লোরাইডের দ্রবীভূত হওয়া যে তাপগ্রাহী পরিবর্তন তা কী করে বুঝবে? 

উ:-  একটি টেস্ট টিউবের মধ্যে অ্যামােনিয়াম ক্লোরাইডকে জলে দ্রবীভূত করা হলে দেখা যাবে যে টেস্ট টিউবের বাইরের গায়ে ফোঁটা ফোঁটা করে জল জমেছে। এই পর্যবেক্ষণের দ্বারা প্রমাণিত হয় যে, জলে অ্যামােনিয়াম ক্লোরাইডের দ্রবীভূত হওয়ার ফলে পরিবেশ থেকে তাপ শােষিত হয়েছে। অর্থাৎ এটি একটি তাপগ্রাহী পরিবর্তন ।

৫.৬ যক্ষ্মা রােগের লক্ষণ কী কী? 

উ:-  যক্ষ্মা রােগের লক্ষণগুলি হলাে : 

(i) ভয়াবহ কাশি ও তার সাথে রক্ত পড়া রাতের দিকে কষ্ট বাড়ে । 

(ii) প্রচন্ড ঘাম হয়, ওজন ক্রমশ কমতে থাকে ।

৫.৭ কোশপর্দার গঠন ব্যাখ্যা করাে।

উ:-  কোষপর্দার গঠন : 

(i) বিজ্ঞানী ডাভসন ও ড্যানিয়েলি (1935) -এর মতে কোশপর্দার গঠন প্রােটিন – লিপিড – প্রােটিন নির্মিত ত্রিস্তর বিশিষ্ট। 

(ii) এই স্যান্ডউইচ মডেল অনুযায়ী কোষ পর্দা গড়ে প্রায় 75 অ্যামস্ট্রম পুরু, যার মাঝের লিপিড স্তরটি 35 অ্যামস্ট্রম এবং এর দুদিকে প্রতিটি প্রােটিন স্তরের পুরুত্ব প্রায় 20-25 অ্যামস্ট্রম। 

(iii) পরবর্তীকালে বিজ্ঞানী রবাটর্সন (1959) কোশপর্দার এইরূপ গঠন সমস্ত সজীব কোশ ও কোশীয় অঙ্গাণুর ক্ষেত্রে পর্যবেক্ষণ করেন বলে একে ‘একক পর্দা’ রূপে অভিহিত করেন।

(iv) বিজ্ঞানী সিঙ্গার ও নিকলসন (1972) কোষপর্দার গঠনকে ‘ফ্লুইড মােজেইক মডেল ‘ রূপে বর্ণনা করেন। তাঁদের মতে কোশপর্দার মাঝখানে থাকে দ্বিস্তরীয় ফসফোলিপিড স্তর এবং লিপিড স্তরের মধ্যে মােজেইক দানার মতাে অন্তঃস্থ প্রােটিন ও বহিস্থ প্রােটিনগুলি গ্রথিত থাকে। কোষপর্দার এই গঠনটি বর্তমানে সবর্জনগৃহীত হয়েছে।

৬. তিন-চারটি বাক্যে উত্তর দাও :

৬.১ সমযােজী বন্ধন দিয়ে গঠিত জল, মিথেন এবং অ্যামােনিয়া অণুর প্রাথমিক গঠন কীরকমের তা এঁকে দেখাও। 

উ:-  

৬.২ এন্ডােপ্লাজমীয় জালিকার গঠন ও কাজ উল্লেখ করাে।

উ:-  এন্ডােপ্লাজমীয় জালিকার গঠন: গঠনগত দিক থেকে তিন ধরনের এন্ডােপ্লাজমীয় জালিকা আছে। যথা: 

(i) সিস্টারনি : এই প্রকার ER সাধারনত চ্যাপ্টা,শাখাহীন থলির মতাে হয়। সিস্টারনি গুলাে কোষের সাইটোপ্লাজমের ভিতর সমান্তরাল ভাবে বিন্যস্ত থাকে । এই প্রকার ER এর গায়ে রাইবােজোম দানা থাকতেই পারে। 

(ii) ভেসিকল : এরা গহ্বরের ন্যায় পর্দাবেষ্টিত অঙ্গানু। 

(iii) টিউবিউল : এগুলি শাখাবিশিস্ট নালিকাসদৃশ কোষ। এগুলাে মসৃণ হয় কারণ এদের গাত্রে রাইবােজম থাকে না। 

* এন্ডােপ্লাজমিক রেটিকিউলাম এর কাজ :

এন্ডােপ্লাজমিক রেটিকিউলাম এর প্রধান কাজ গুলি হল –

(i) কোশের সাইটোপ্লাজমের মাঝে প্রাচীর স্বরূপ সাইটোপ্লাজমকে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র অংশে ভাগ করে।

(ii) প্রােটোপ্লাজমকে যান্ত্রিক দৃঢ়তা প্রদান করে। 

(iii) অমসৃণ এন্ডােপ্লাজমিক জালিকা প্রােটিন সংশ্লেষ করে l

(iv) মসৃণ এন্ডােপ্লাজমিক জালিকা ফ্যাট সংশ্লেষ করে।

(v) এন্ডােপ্লাজমিক রেটিকিউলাম কোষ প্রাচীর নির্মাণে সহায়তা করে।

(vi) এটি কোষের মধ্যেকার বিষাক্ত পদার্থকে নিষ্ক্রিয় করে।

৬.৩ তামার আপেক্ষিক তাপ 0.09 cal/g°C । 70 গ্রাম ভরের তামার টুকরাের উয়ুতা 20°C বৃদ্ধি করতে হলে কত পরিমাণ তাপ লাগবে তা নির্ণয় করাে। 

উ:-  দেওয়া আছে, ভর = 70 gm 

আপেক্ষিক তাপ = 0.09 cal/g°

বর্ধিত উষ্ণ = 20°C 

আমরা জানি, 

প্রয়ােজনীয় তাপ = ভর আপেক্ষিক তাপবর্ধিত উষ্ণতা = 70 x 0.09 x 20 cal

৬.৪ “জৈব সার অজৈব সারের চেয়ে ভালাে” – বক্তব্যটির যথার্থতা ব্যাখ্যা করাে। 

উ:-  জৈব সার অজৈব সারের চেয়ে ভালাে বক্তব্যটির কারণ,-

(i) রাসায়নিকের কুপ্রভাব থেকে মাটিকে সুরক্ষা প্রদান কয়েক বছর ধরে পুনঃপুন রাসায়নিক সার ব্যবহারে মাটির গুণমানতা হ্রাস হয়। কিন্তু জৈব সার মাটির অম্লত্ব ও ক্ষারত্বের নিয়ন্ত্রণে সাহায্য কাজ করে এবং মাটির সহনশীলতা বৃদ্ধি করে। 

(ii) নিরাপদ: জৈব সার ব্যবহারে উৎপাদিত ফসল হয় স্বাস্থ্যসম্মত ও নিরাপদ।

(iii) মাটির জলধারণ বৃদ্ধি: জৈব সার মাটিতে হিউমাস এর পরিমাণ বৃদ্ধি করে ফলে মাটির জলধারণ ক্ষমতা বেড়ে যায়।

(iv) অণুজীবের বৃদ্ধি: জৈব সার ব্যবহারে মাটির উপকারী অণুজীবের কাৰ্য্যকলাপ বেড়ে যায় এবং এদের বংশবিস্তারেও তা সহায়ক হয়। 

(v) কম খরচ: কম খরচে শস্যে জৈব কীটনাশক ব্যবহার করে কৃষকদের অর্থ সাশ্রয় করা সম্ভব।

৬.৫ কোনাে তরলের বাম্পায়নের হার কোন কোন বিষয়ের উপর নির্ভর করে? 

উ:-  কোনাে তরলের বাম্পায়নের হার নির্ভর করে: 

(i) তরলের উপরিতলের ক্ষেত্রফল : তরলের উপরিতলের ক্ষেত্রফল যত বাড়ে তরল তত তাড়াতাড়ি বাষ্পে পরিণত হয় অর্থাৎ বাম্পায়নের হার বাড়ে । 

(ii) তরলের প্রকৃতি : বিভিন্ন তরলের বাম্পায়নের হার বিভিন্ন । তরলের ফুটনাঙ্ক কম হলে বাস্পায়নের হার বেশি হয় । উদ্বায়ী তরলের বাম্পায়নের হার সর্বাধিক হয় ।

(iii) তরলের ওপর চাপ : তরলের ওপর বায়ুমন্ডলের চাপ বাড়লে বাস্পায়নের হার কমে যায় । চাপ কমলে বাম্পায়নের হার বাড়ে। 

(iv) তরল ও তরল-সংলগ্ন বায়ুর উষ্ণতা : তরল ও তরল-সংলগ্ন বায়ুর উষ্ণতা বাড়লে বাষ্পায়ন দ্রুত হয় ।

৬.৬ কীভাবে কৃত্রিম পদ্ধতিতে মাছের ডিমপােনা তৈরি করা হয় ?

উ:- এই পদ্ধতিতে প্রতিটি সুস্থ, সবল স্ত্রী মাছের জন্য দুটি সুস্থ সবল পুরুষ মাছ নেওয়া হয় ।এরপর মাছের পিটুইটারি গ্রন্থির নির্যাস নিয়ে ওই বাছাই করা মাছদের নির্দিষ্ট নিয়ম অনুযায়ী ইনজেকশন হয়। এর ফলে স্ত্রী মাছ ডিম ও পুরুষ মাছ শুক্রাণু নিঃসরণ করে। এরপর এই শুক্রাণু ও ডিম্বাণুর মিলন ঘটিয়ে ডিমপােনা তৈরী করা হয়। এরপর ডিমপােনাগুলিকে সংগ্রহ করে আঁতুড় পুকুরে স্থানান্তরিত করা হয়। এভাবেই কৃত্রিম পদ্ধতিতে মাছের ডিমপােনা তৈরী করা হয়ে থাকে ।

 

Class 7 Model Activity Task

COMPILATION OCTOBER (NEW)

নীচের বিষয় গুলিতে Click করে নতুন মডেল অ্যাক্টিভিটি টাস্ক গুলি লিখে নিতে পারবে

বাংলা

অংক

ইংরেজী

পরিবেশ ও বিজ্ঞান

স্বাস্থ্য ও শরীর শিক্ষা

ইতিহাস

ভূগোল

Leave a Comment