মাধ্যমিক জীবন বিজ্ঞান প্রশ্ন ও উত্তর PDF সহ|জীবজগতে নিয়ন্ত্রণ ও সমন্বয় প্রথম অধ্যায় প্রশ্ন ও উত্তর|Madhyamik Life Science Question and Answers with PDF|Madhyamik Life Science Suggestion 2023

Madhyamik Life Science Question and Answers with PDF|মাধ্যমিক জীবনবিজ্ঞান জীবজগতে নিয়ন্ত্রণ ও সমন্বয় (প্রথম অধ্যায়) প্রশ্ন উত্তর নিচে দেওয়া হলো | এই Madhyamik life Science Suggestion 2022|মাধ্যমিক জীবন বিজ্ঞান সাজেশন|West Bengal Madhyamik Life Science Examination|পশ্চিমবঙ্গ মাধ্যমিক জীবন বিজ্ঞান মাধ্যমিক পরীক্ষার জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ|তোমরা যারা মাধ্যমিক দশম শ্রেণীর জীবন বিজ্ঞান পরীক্ষার সাজেশন খুঁজে চলেছ, তারা নিচে দেওয়া প্রশ্নপত্র ভালো করে পড়তে পার|পরিবেশের জন্য ভাবনা (অধ্যায়-১) MCQ, সংক্ষিপ্ত, অতিসংক্ষিপ্ত এবং রোচনাধর্মী প্রশ্ন উত্তর গুলি তোমাদের পরীক্ষার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ হবে|আমাদ্র আশা তোমাদের আসন্ন পরীক্ষাতে প্রশ্নগুলো আসার সম্ভাবনা খুব বেশি।

জীবজগতে নিয়ন্ত্রণ ও সমন্বয় (প্রথম অধ্যায়) সংক্ষিপ্ত, অতি সংক্ষিপ্ত এবং রচনাধর্মী প্রশ্ন উত্তর | Madhyamik Physical Science Suggestion মাধ্যমিক ভৌতবিজ্ঞান সাজেশন

অতি সংক্ষিপ্ত প্রশ্ন ও উত্তর : (Mark-1)|জীবজগতে নিয়ন্ত্রণ ও সমন্বয় (প্রথম অধ্যায়) প্রশ্ন ও উত্তর |মাধ্যমিক জীবন বিজ্ঞান সাজেশন

1.জীবে উত্তেজনা বা প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে—উদ্দীপক।

2.অ্যাক্সনের ওপর যে আবরণ থাকে, তাকে বলে—অ্যাক্সোলেমা।

3.অ্যাক্সনের অ্যাক্সোলমার ওপর যে আবরণ থাকে,তাকেবলে—মায়ােলিনসিদ।

4. নিউরােনের যে অংশটি স্বােয়ান কোশ সংলগ্ন থাকে,তাকেবলে—অ্যাক্সন।

5. দুটি নিউরােনের সংযােগস্থলকে বলে—সাইন্যাপস।

6.সাইন্যাপসে যে তরল পদার্থ থাকে, তা হল— নিউরােট্রান্সমিটার।

7.সাইন্যাপসের মধ্যস্থিত নিউরােট্রান্সমিটার পদার্থটি হল—অ্যাসিটাইলকোলিন।

8.সাইন্যাপসের মধ্য দিয়ে স্নায়ুস্পন্দন পরিবহণ করে— নিউরােট্রান্সমিটার।

9.প্রাণীদেহে স্নায়বিক আদান-প্রদান নিম্নের কার মাধ্যমে সম্পন্ন হয়—স্নায়ু।

10.স্নায়ু যে যােগকলার আবরণ দ্বারা আবৃত থাকে, তাকে বলে—এপিনিউরিয়াম।

11.গ্রাহক অঙ্গ থেকে উদ্দীপনা পরিবহণ করে—সংজ্ঞাবহস্নায়ু।

12.জীবদেহে পরিবেশের পরিবর্তনে যে প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়,তাকেবলে—উত্তেজনা।

13.কেন্দ্রীয় স্নায়ুতন্ত্র থেকে কারক অঙ্গে স্নায়ুস্পন্দন বহন করে—চেষ্টীয়স্নায়ু।

14.কোন্ স্নায়ু কেন্দ্রীয় স্নায়ুতন্ত্রের দিকে স্নায়বিক অনুভূতি পরিবহণকরে—সংজ্ঞাবহবাসংবেদীস্নায়ু।

15. গঠন অনুযায়ী স্নায়ু—পাঁচপ্রকার।

16.বাইপােলার নিউরােনে থাকে—একটিডেনড্রনওঅ্যাক্সন।

17.স্নায়ুতন্ত্রের গঠনগত উপাদান হল—নিউরােগ্লিয়া।

18.স্নায়ুতন্ত্রের আলম্ব কোশ বলে—নিউরােগ্লিয়াকে।

19.স্নায়ুতন্ত্রের মােট কোশসমষ্টির প্রায় কত শতাংশ নিউরােগ্লিয়া—প্রায় 90 শতাংশ।

20.নিউরােগ্লিয়া সাধারণত কত প্রকারের—পাঁচ-প্রকার।

28. মানবদেহে করােটি স্নায়ুর সংখ্যা হল—12 জোড়া।

29.মানবদেহে সুষুম্নাকাণ্ডের সংখ্যা হল—31 জোড়া।

30.মানবদেহে চেতনা, আভ্যন্তরীণ যন্ত্র ও তন্ত্রের মধ্যেসমন্বয়ওপরিবেশেরসঙ্গেসম্পর্কবজায়রাখে—স্নায়ুতন্ত্র।

31.মানুষের একটি করােটি স্নায়ুর উদাহরণ দাও—অডিটরিস্নায়ু।

32.মানুষের একটি মিশ্র স্নায়ু হল—ভেগাসস্নায়ু।

33.গ্যাংলিয়া গঠিত হয় একাধিক স্নায়ুকোশের—কোশদেহনিয়ে।

34.অমেরুদণ্ডী প্রাণীদের মস্তিষ্কের ন্যায় কাজ করে—গ্যাংলিয়া।

35.করােটি স্নায়ু কোন্ স্নায়ুতন্ত্রের অন্তর্গত—প্রান্তীয়স্নায়ুতন্ত্র।

36. মস্তিষ্ক কোন্ স্নায়ুতন্ত্রের অন্তর্গত—কেন্দ্রীয়স্নায়তন্ত্র।

37.কেন্দ্রীয় স্নায়ুতন্ত্রের প্রধান অংশটি হল—মস্তিষ্ক।

38.দেহের ভারসাম্য নিয়ন্ত্রণ করে— লঘুমস্তিষ্ক।

39.গুরুমস্তিষ্কের প্রধান অংশটি হল—সেরিব্রাম।

40.চিন্তা, স্মৃতি, বুদ্ধি ইত্যাদি মানসিক বােধ নিয়ন্ত্রণ করে—সেরিব্রালকর্টেক্স।

41.নিম্নের কোনটিহাসি, কান্না, ভয় নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে—হাইপােথ্যালামাস।

42. স্বয়ংক্রিয় স্নায়ুতন্ত্র যাদের ওপর কাজ করে, সেগুলি হল—আন্তরযন্ত্ৰীয়অঙ্গ।

43.প্রতিবর্ত ক্রিয়া নিয়ন্ত্রিত হয় কোন্ অঙ্গের মাধ্যমে—সুষুম্নাকাণ্ড।

44. মস্তিষ্কের আবরণকে বলে—মেনিনজেস।

45.নিম্নের কোটি মস্তিষ্কের ভিতরের দিকের আবরণী—পিয়াম্যাটার।

46. নীচের কোনটি মেনিনজেসের অংশ নয়—গ্রেমেটার।

47.CSF থাকে—মস্তিষ্কেরভেন্ট্রিকলে।

48.নিউরােসিল থাকে—সুষুম্নাকাণ্ডেরকেন্দ্রীয়নালিতে।

49.প্রতিবর্ত ক্রিয়ার নামকরণ করেন—শেরিংটন।

50.প্রতিবর্ত ক্রিয়ার শ্রেণিবিন্যাস করেন—প্যাভলভ

51.নিম্নের কোনটি সহজাত-প্রতিবর্ত ক্রিয়ার উদাহরণ—লালানিঃসরণ।

52.অভ্যাসগত প্রতিবর্ত ক্রিয়ার একটি উদাহরণ হল—নির্দিষ্টসময়েঘুমানােবাশিশুরহাঁটতেশেখা।

53.মানুষের অক্ষিগােলকের যে অংশটি আলােক সুবেদী,তাহল—রেটিনা।

54.চোখের যে অংশে প্রতিবিম্ব গঠিত হয়, তা হল—রেটিনা।

55.রেটিনা ও অপটিক স্নায়ুর সংযােগস্থলকে বলে—অন্ধবিন্দু।

56.চোখের যে অংশে সবচেয়ে স্পষ্ট প্রতিবিম্ব গঠিত হয়,তাহল—পীতবিন্দু।

57.কম আলােকে বা অন্ধকারে দেখতে সাহায্য করে— রড কোশ।

58.চোখের কোন অংশে রড ও কোন কোশ থাকে—রেটিনা।

59.অক্ষিগোলকেআলোরপ্রবেশনিয়ন্ত্রণকরে—আইরিশ।

60.স্নায়ুতন্ত্রের গঠনগত ও কার্যগত একক—নিউরােন।

61.যে ছিদ্র দিয়ে চোখে আলো তা হল—তারারনধ।

62.বাহ্যিক বা আভ্যন্তরীণ উদ্দীপনার প্রভাবে স্নায়ুতন্ত্রেরকোন্উপাদানউদ্দীপিতহয়—গ্রাহক।

64.স্নায়বিক উদ্দীপনায় উদ্দীপিত হয়েসাড়াদেয়—কারক।

65.স্নায়ুতন্তুগুচ্ছকে বলে—ফিউনিকুলাম।

66.প্রাণীদেহে ভৌত সমন্বয়কারী বস্তুুটি হল—স্নায়ুতন্ত্র।

67.স্নায়ুতন্ত্রের ধারক কোশ হল—নিউরােগ্লিয়া।

68.নিউরােন বা স্নায়ুকোশের দীর্ঘ প্রবর্ধককে বলে— অ্যাক্সন।

69.চোখের লেন্স ও রেটিনার মধ্যবর্তী পশ্চাৎ প্রান্তে অবস্থিত তরলকে বলে—ভিট্রিয়াসহিউমর।

70.মায়ােপিয়ারােগেচোখেরচশমায়নিম্নরকোন্লেন্সটিব্যবহারকরাহয়—অবতললেন্স।

71.হাইপারমেট্রোপিয়ারােগেচোখেরচশমায়কোন্লেন্সব্যবহৃতহয়—উত্তললেন্স।

72.প্রেসবায়ােপিয়ায়যেলেন্সব্যবহৃতহয়,তাহল—বাইফোকাললেন্স।

73.যে বহুকোশী প্রাণীটির দেহে স্নায়ুতন্ত্র থাকে,সেটিহল—সাইকনবাস্পঞ্জ।

74.মানুষের সুষুম্নাকাণ্ডের দৈর্ঘ্য—45 সেন্টিমিটার।

75.চেষ্টীয়স্নায়ুসুষুম্নকাণ্ডেরকোনঅংশথেকেনির্গতহয়—অঙ্কীয়শৃঙ্গ।

76.সংজ্ঞাবহ নিউরােন সুষুম্নাকাণ্ডের কোন্ অংশের মাধ্যমে সুষুম্নাকাণ্ডেপ্রবেশকরে—পৃষ্ঠীয়শৃঙ্গ।

77.দেহের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে—হাইপােথ্যালামাস।

78.কোনটি পশ্চাদমস্তিষ্কের অংশ নয়—টেকটাম।

79.একজনপ্রাপ্তবয়স্কপুরুষেরক্ষেত্রেসুষুম্নাকাণ্ডেরওজনপ্রায়—35 গ্রাম।

80.কর্নিয়া ও লেন্সের মধ্যবর্তী অগ্রপ্রকোষ্ঠে অবস্থিত তরলপদার্থকেবলে—অ্যাকুয়াসহিউমর।

81.দুটি নিউরােনের সংযােগস্থলে উপস্থিত থাকে—নিউরােহিউমর।

82.নিম্নলিখিতগুলির মধ্যে যেটি চেষ্টীয় স্নায়ু, সেটি হল—হাইপােগ্লোসাল।

83.স্নায়ুকোশের কোশঝিল্লি বরাবর পরিবাহিত স্ব-তাড়িত ঋণাত্মক বৈদ্যুতিক তরঙ্গকেই বলে —স্নায়ুস্পন্দন।
84.পরিবেশের বাহ্যিক বা আভ্যন্তরীণ উদ্দীপনায় প্রাণী দেহে যে অনৈচ্ছিক প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়, তাকে বলে — প্রতিবর্তক্রিয়া।

85.প্রতিবর্ত চাপে অন্তর্বাহী নিউরােনটি—সংজ্ঞাবহ।

86.একটি নিউরােগ্লিয়া কোশের উদাহরণ হল—স্বােয়ানকোশ।

87.পরিণত মানুষের মস্তিষ্কের ওজন প্রায়—1.36 কিগ্রা।

88.মানব মস্তিষ্কে স্নায়ুকোশের সংখ্যা প্রায়—দশশতকোটি।

89. গুরুমস্তিষ্কের প্রতি গােলার্ধে যে খণ্ডকে দুটি কেন্দ্র থাকে তারনাম—অক্সিপিটাললােব।

90.মস্তিষ্কের গহ্বরকে বলে—নিলয়।

91. দর্শন অনুভূতি গ্রহণে সাহায্যকারী স্নায়ুটি হল—অপটিকস্নায়ু।

92.সুষুম্নাকাণ্ডের গহ্বরকে বলে—কেন্দ্রীয়নালি।

93.অপটিক স্নায়ু হল এক প্রকার—সংজ্ঞাবহস্নায়ু।

94.অপটিক স্নায়ু যে অনুভূতি গ্রহণ করে, তা হল—দর্শন।

95.নিম্নের কোনটি চোখের প্রতিসারক মাধ্যম হিসাবে কাজ করে—কর্নিয়ারঅ্যাকুয়াসহিউমর

96.দ্বিনেত্র দৃষ্টি দেখা যায়—মানুষ।

97.নিম্নের কোন প্রাণীর একনেত্রদৃষ্টি দেখাযায়—গােরু।

 File Details –

PDF Name / Book Name  মাধ্যমিক জীবনবিজ্ঞান প্রথম অধ্যায় ১ নম্বরের প্রশ্ন এবং উত্তর Part-3 
Language : Bengali
Size : 611 kb
Download Link : Click Hereto Download

Join Telegram Members

 

 

 

Leave a Comment