মিলের অন্বয়ী পদ্ধতি ব্যাখ্যা করঃ উচ্চমাধ্যমিক দর্শন তৃতীয় অধ্যায়

প্রিয় বন্ধুরা আজকে আমি আলোচনা করব, মিলের অন্বয়ী পদ্ধতি ব্যাখ্যা করঃ উচ্চমাধ্যমিক দর্শন তৃতীয় অধ্যায়|উচ্চমাধ্যমিক দর্শন তৃতীয় অধ্যায় মিলের পরীক্ষামূলক পদ্ধতি|মিলের অন্বয়ী পদ্ধতি pdf|অন্বয়ী পদ্ধতির অপপ্রয়োগের ফলে কোন দোষ ঘটে?|অন্বয়ী পদ্ধতি অসুবিধা|অন্বয়ী পদ্ধতির সুবিধা অন্বয়ী পদ্ধতির একটি প্রতীকী দৃষ্টান্ত দাও|অন্বয়ী পদ্ধতি সুবিধা ও অসুবিধা গুলি আলোচনা করো|অন্বয়ী পদ্ধতির মিলের অন্বয়ী পদ্ধতির বৈশিষ্ট্য|অন্বয়ী পদ্ধতির উদাহরণ|অন্বয়ী পদ্ধতির একটি সাংকেতিক উদাহরণ দাও| মিলের অন্বয়ী পদ্ধতির সূত্র সমস্ত প্রশ্নের উত্তর তোমরা নিচে PDF আকারে পেয়ে যাবে 

উচ্চমাধ্যমিক দর্শন তৃতীয় অধ্যায় মিলের পরীক্ষামূলক পদ্ধতি

মিলের অন্বয়ী পদ্ধতির সূত্র

মিলের অন্বয়ী পদ্ধতির সূত্রঃ- দার্শনিক মিল অন্বয়ী পদ্ধতির সূত্রটি কে এইভাবে ব্যক্ত করেছেন, “আলোচ্য ঘটনার দুই বা ততোধিক দৃষ্টান্তে যদি একটি মাত্র সাধারণ ঘটনা উপস্থিত থাকে এবং যদি এই সাধারণ ঘটনাটির সম্বন্ধে দৃষ্টান্ত গুলির মধ্যে মিল থাকে তাহলে সেই সাধারণ ঘটনাটি হবে আলোচ্য ঘটনার কারণ বা কার্য’’ 

মিলের অপসারণের সূত্র 

মিলের অপসারণের সূত্রঃ- অপসারণের যে নীতির উপর ভিত্তি করে এই পদ্ধতিটি প্রতিষ্ঠিত হল “পূর্ববর্তী ঘটনা অংশকে বাদ দিলে কার্যের হানি হয় না সেই অংশটি কখনো কারণ বা কারণে অংশ হতে পারে না”

মিলের অন্বয়ী পদ্ধতির সাংকেতিক উদাহরণ 

মিলের অন্বয়ী পদ্ধতির সাংকেতিক উদাহরণঃ- 

পূর্বগামী ঘটনাঅনুগামী ঘটনা 
ABCabc
ADEade
AFGafg

সুতরাং A হল a কারণ।

অন্বয়ী পদ্ধতির  বাস্তব উদাহরণ

১) কার্য থেকে কারণঃ- মনে করা যাক আমরা ম্যালেরিয়া জ্বরের কারণ অনুসন্ধান করতে চাই। এইজন্য যেসব জায়গায় ম্যালেরিয়া জ্বর বেশি হচ্ছে সেসব জায়গাগুলি পর্যবেক্ষণ করে দেখা গেল যে, সমস্ত ক্ষেত্রেই ম্যালেরিয়া জ্বরের অপরিবর্তনীয় পূর্বগামী ঘটনা হল অ্যানোফিলিস মশার জংশন এর থেকে অন্বয়ী পদ্ধতি প্রয়োগ করে সিদ্ধান্ত করা যেতে পারে যে অ্যানোফিলিস মশার জংশন হল ম্যালেরিয়া জ্বরের কারণ।

২)কারণ থেকে কার্যঃ- মনে করা যাক বায়ু পরিবর্তনের কি ফল তা আমরা আবিষ্কার করতে চাই। এজন্য বায়ু পরিবর্তন করেছে এমন কতগুলো ব্যক্তির দৃষ্টান্ত পর্যবেক্ষণ এর সাহায্যে সংগ্রহ করা হল দেখা গেল যে সকল ব্যক্তির স্বাস্থ্য আগের তুলনায় উন্নত হয়েছে যদিও অন্যান্য বিষয়ে তাদের ব্যক্তিগত পার্থক্য আছে এর থেকে অন্বয়ী পদ্ধতি প্রয়োগ করে সিদ্ধান্ত করা যেতে পারে যে বায়ু পরিবর্তনের ফল হল শারীরিক উন্নতি।

অন্বয়ী পদ্ধতির সুবিধা ও অসুবিধা 

অন্বয়ী পদ্ধতির সুবিধাঃ- 

১) যেসব ক্ষেত্রে পরীক্ষণ সম্ভব নয় সেই সব ক্ষেত্রে এ পদ্ধতি প্রয়োগ করে কার্যকারণ সম্পর্ক নির্ণয় করা হয় ।

২) এই পদ্ধতির সাহায্যে আমরা কারণ থেকে কার্য এবং কার্য থেকে কারণ আবিষ্কার করতে পারি।

৩) অন্বয়ী পদ্ধতির সাহায্যে আমরা কার্যকারণের সঙ্গে যুক্ত অপ্রয়োজনীয় বিষয়ে গুলিকে অপসারণ বা বর্জন করতে পারি।

৪) অন্বয়ী পদ্ধতি কার্যকারণ সম্বন্ধে প্রকল্প গঠন করতে সাহায্য করে। 

অন্বয়ী পদ্ধতির অসুবিধাঃ- 

১) বহু কারণবাদের সম্ভাবনা থেকে এই পদ্ধতি মুক্ত নয়।

২) এই পদ্ধতি পর্যবেক্ষণ এর উপর নির্ভরশীল বলে এক্ষেত্রে ও পর্যবেক্ষণ দোষের সম্ভাবনা থাকে।

৩) অন্বয়ী পদ্ধতি সহ অবস্থান থেকে কার্যকারণ সম্বন্ধকে পৃথক করতে পারেনা। 

৪) এই পদ্ধতির ক্ষেত্রে ভুল সিদ্ধান্তে উপনীত হওয়ার আশঙ্কা থাকে।

উপসংহারঃ- অন্বয়ী পদ্ধতি মূলত পর্যবেক্ষণের পদ্ধতি বলা হয় কারণ যে সকল ক্ষেত্রে পরীক্ষণ সম্ভব নয়, সেই সব ক্ষেত্রে কার্যকারণ সম্পর্ক নির্ণয়ের জন্য আমাদের অন্বয়ী পদ্ধতির উপর নির্ভর করতে হয়। তাছাড়া অন্বয়ী পদ্ধতি কার্যকারণ সম্বন্ধে প্রকল্প গঠন করতে সাহায্য করে বলে বৈজ্ঞানিক অনুসন্ধান, বৈজ্ঞানিক আবিষ্কার ও প্রমাণে অন্বয়ী পদ্ধতির যথেষ্ট মূল্য আছে।

১)উপমাযুক্তি বা সাদৃশ্যমূলক আরোহ অনুমান কাকে বলে?

২) কারনের পরিমানগত লক্ষন সম্পর্কে আলোচনা কর

৩) বৈজ্ঞানিক আরোহ অনুমান কাকে বলে? বৈজ্ঞানিক আরোহ অনুমানের বৈশিষ্ট্য গুলি কি কি? বৈজ্ঞানিক আরোহ অনুমান এর উদাহরণ দাওবৈজ্ঞানিক ও অবৈজ্ঞানিক আরোহ অনুমানের মধ্যে পার্থক্য লিখ

৪)দ্বাদশ শ্রেণী আরোহ দর্শনের প্রথম অধ্যায় প্রশ্ন ও উত্তর।আরোহ অনুমানের স্বরূপ প্রশ্ন ও উত্তর

৫) দৃষ্টান্তসহ আবশ্যিক শর্ত, পর্যাপ্ত শর্ত এবং আবশ্যিক পর্যাপ্ত শর্ত ব্যাখ্যা করো

৬)কারণ কাকে বলে? কারণের গুণগত ও পরিমাণগত লক্ষণ আলোচনা করো


Join Telegram Members

Leave a Comment